adplus-dvertising

জনগণের কল্যাণে কাজ করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের

জনগণের কল্যাণে কাজ করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের , স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আক্তার হোসেন পুলিশ

কর্মকর্তাদের

দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি জনগণের কল্যাণে কাজ করার আহ্বান জানান।সোমবার সকালে রাজারবাগে বাংলাদেশ পুলিশ

অডিটোরিয়ামে

পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ আহ্বান জানান।উল্লেখ্য, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব হিসেবে দায়িত্ব

নেওয়ার

পর প্রথমবারের মতো পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ dailypotrika.xyz

জনগণের কল্যাণে কাজ করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের

সভায় সভাপতিত্ব করেন আইজিপি মো. বেনজীর আহমেদ। স্বাগত জানান অতিরিক্ত আইজি (এএন্ডআই) মো. মঈনুর রহমান চৌধুরী।
সিনিয়র সচিব বলেন, দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক

ক্ষেত্রে অনেক দূর এগিয়েছে। সমাজে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে না পারলে এভাবে দেশের উন্নয়ন হবে না। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে

দেশের আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ পুলিশে অনেক উদ্ভাবনী ধারণা ও ধারণা বাস্তবায়িত হচ্ছে। তার মধ্যে একটি হল কমিউনিটি পুলিশিং, বিট পুলিশিং

ইত্যাদি।

“বিট পুলিশিং জনসাধারণের কাছে পৌঁছানোর জন্য একটি চমৎকার প্রক্রিয়া,” তিনি বলেছিলেন। এটি একটি উদ্ভাবনী ধারণা, একটি ভাল উদ্যোগ। তিনি বিট পুলিশিং শক্তিশালী করার জন্য জোর দেন।

তিনি বলেন, পুলিশিংয়ে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে

অপরাধ দমনের পরিবর্তে অপরাধ যাতে না ঘটে তার ব্যবস্থা করতে হবে। জনগণের প্রত্যাশা অনুযায়ী পুলিশকে জনগণের বন্ধু হিসেবে কাজ করতে হবে।

সিনিয়র সচিব বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের আমলাতন্ত্র অনেক আধুনিক হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বার্ষিক কর্মক্ষমতা চুক্তি (APA), জাতীয় সততা কৌশল, উদ্ভাবন এবং আরও অনেক কিছু। ফলে অন্য সময়ের চেয়ে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

তিনি দেশের উন্নয়নে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সহযোগিতার ভিত্তিতে জনগণের কল্যাণে কাজ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সভায় উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তারা দেশ ও জনগণের কল্যাণে পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধি ও আধুনিকায়নের লক্ষ্যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরেন। জ্যেষ্ঠ সচিব এসব বিষয় যত দ্রুত সম্ভব সমাধানের আশ্বাস দেন।

জনগণের কল্যাণে কাজ করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের

আইজিপি তার বক্তব্যে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ২০৪১ সালে বাংলাদেশ একটি আধুনিক ও উন্নত দেশে পরিণত হবে। পুলিশকেও উন্নত দেশের মতো আধুনিক পুলিশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এই কাজ রাতারাতি হবে না। এ জন্য সময় ও পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে হবে। আমরা আগামী ২০ বছরের জন্য একটি ‘ভিশন প্ল্যান’ প্রণয়ন করে পুলিশকে উন্নত দেশে একটি দরকারী পুলিশ বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

সিনিয়র সচিবের ‘উন্নয়ন পুলিশিং’ ধারণাকে স্বাগত জানিয়ে আইজিপি বলেন, বিট পুলিশিংয়ের মাধ্যমে পুলিশের সঙ্গে জনগণের বন্ধন আরও দৃঢ় হবে।

প্রায় চার ঘণ্টাব্যাপী এ বৈঠকে অতিরিক্ত আইজি, ঢাকার বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটের প্রধান, পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভার শুরুতে করোনায় আত্মহত্যাকারী পুলিশ সদস্যদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

About Admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.