adplus-dvertising

নারীর অঙ্গচ্ছেদন প্রথা নিয়ে যা বললেন পোপ ফ্রান্সিস

নারীর অঙ্গচ্ছেদন প্রথা নিয়ে যা বললেন পোপ ফ্রান্সিস, ফিমেল জেনিটাল মিটিলেশন’ মানে ‘এফজিএম’। সেই প্রথা ‘খৎনা’ নামে পরিচিত। বয়ঃসন্ধিকালে

মেয়েদের ‘ভগাঙ্কুর’ বা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কেটে ফেলার রীতি বিভিন্ন দেশে যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। পোপ ফ্রান্সিস বলেছেন, এই প্রাচীন প্রথা

বন্ধ

করতে হবে।রবিবার ভ্যাটিকান সিটির সেন্ট পিটার্স স্কোয়ারে এক সভায় পোপ বলেন, “মহিলা যৌনাঙ্গ কেটে ফেলা” এবং “নারী পাচার তাদের

মর্যাদার অপমান।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ dailypotrika.xyz

নারীর অঙ্গচ্ছেদন প্রথা নিয়ে যা বললেন পোপ ফ্রান্সিস

তিনি বলেন, এক শ্রেণীর মানুষ সম্মান বিরোধী কাজে লিপ্ত হয়ে অর্থ উপার্জন করছে। প্রতি বছর বিশ্বের প্রায় 3 মিলিয়ন মহিলাকে এই অনুশীলনের

মধ্য দিয়ে যেতে হয়, যা তাদের স্বাস্থ্যের জন্য বিপজ্জনক। তাই নিক সরকার এই প্রথা বন্ধ করতে পদক্ষেপ নিয়েছে।
উল্লেখ্য, বিশ্বের কিছু দেশে, কিছু ধর্মীয় গোষ্ঠীর মধ্যে ‘ফিমেল জেনিটাল মিটিগেশন’ (FGM) বা ‘খৎনা’ প্রথা চালু আছে। তরুণ বয়সে প্রতিবাদের

শক্তি তৈরি হওয়ার আগেই যৌনসুখের ‘ভগাঙ্কুর’ বা অঙ্গ কেটে ফেলা হয়। গাম্বিয়া, সোমালিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশের মেয়েরা এই

অনুশীলনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছে। এ নিয়ে তারা প্রতিনিয়ত কথা বলছে। তাদের মতে, এই প্রথার মূলে রয়েছে পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা।

নারীদের কোনো যৌন অনুভূতি থাকে না, এটাই ‘খৎনা’ প্রথার মানসিকতা। 2012 সালে, জাতিসংঘ অনুশীলন নিষিদ্ধ করেছিল। জাতিসংঘ একে ‘মানবাধিকার লঙ্ঘন’ বলে অভিহিত করেছে।

রোববার পোপ বলেন, “বিচ্ছেদের এই প্রথা

এখনও অনেক দেশে প্রচলিত। এটা দুর্ভাগ্যজনক। এই প্রথা নারীর মর্যাদা, শরীর ও স্বাস্থ্যের জন্য অবমাননাকর। লক্ষ লক্ষ নারী তাদের যৌনাঙ্গে মিউটেশনের কারণে জটিল রোগে ভুগছে। প্রতি বছর।” সে বন্ধ্যাত্বের মতো সমস্যা নিয়ে বসবাস করছে। এই অভ্যাস এখনই শেষ হোক।”

জাতিসংঘের মতে, আফ্রিকা ও পশ্চিম এশিয়ার অন্তত ৩০টি দেশে নারীর যৌনাঙ্গ বিচ্ছেদ করা হয়। শুধু এই প্রথাই চার লাখের বেশি নারীর

জীবনে সংকট তৈরি করেছে। পোপ তথ্য উল্লেখ করেন এবং অনুশীলন বন্ধ করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, “আমরা রাস্তায় অনেক নারী দেখি যারা স্বাধীন নয়।” পাচারকারীদের ক্রীতদাস করা হয় এবং তাদের জীবন সংক্ষিপ্ত করা হয়।

বিক্ষোভে জোটে আঘাত, অকথ্য অত্যাচার। ”

নারীর অঙ্গচ্ছেদন প্রথা নিয়ে যা বললেন পোপ ফ্রান্সিস

তাই নারী নির্যাতন ও পাচার বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সব রাষ্ট্রপ্রধান ও রাজনৈতিক নেতাদের কাছে পোপের আবেদন।
ইউক্রেন সংকট নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে পাঁচ ঘণ্টা বৈঠক করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

সোমবার রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

About Admin

Check Also

বিধ্বস্ত ট্যাঙ্ক আর লাশে ভরা ইউক্রেনের বুচা শহরের রাস্তা

বিধ্বস্ত ট্যাঙ্ক আর লাশে ভরা ইউক্রেনের বুচা শহরের রাস্তা

বিধ্বস্ত ট্যাঙ্ক আর লাশে ভরা ইউক্রেনের বুচা শহরের রাস্তা, কিয়েভ শহর ঘেরাও করে রেখে ইউক্রেনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.