adplus-dvertising

অনলাইন ক্লাসই কাল হলো কিশোরের

অনলাইন ক্লাসই কাল হলো কিশোরের, করোনাভাইরাস মহামারির কারণে স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে।

এ অবস্থায়

শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ভারতের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনলাইন ক্লাস চালু করা হচ্ছে। যাইহোক, এটি শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের

উপকারের পাশাপাশি ক্ষতি করে। অনলাইন ক্লাসের জন্য উপলব্ধ মোবাইল ফোন এবং অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস সহ ইউটিউবে বিভিন্ন কার্টুন

এবং

ওয়েব সিরিজে শিশু ও কিশোররা আসক্ত হয়ে পড়ছে। এতে তাদের বিভিন্ন মানসিক ও শারীরিক ক্ষতি হচ্ছে।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ dailypotrika.xyz

অনলাইন ক্লাসই কাল হলো কিশোরের

এমনই এক ঘটনা ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে। চলুন জেনে নেওয়া যাক আসল ঘটনা।
ওয়েব সিরিজ দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছেন বিরাজ পচিশিয়া নামের এক কিশোর! এরপর একটি বহুতল ভবনের ১১ তলা থেকে লাফ দিয়ে মৃত্যু হয়।

শনিবার পশ্চিমবঙ্গের ফুলবাগানের একটি অভিজাত বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। বাড়ির সুইমিং পুলের পাশ থেকে বিরাজের লাশ উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা, জাপানি ওয়েব সিরিজ দেখে ওই কিশোর ছাদ থেকে লাফ দিয়েছে।

ফুলবাগানের ক্যানাল সার্কুলার রোডের বাসিন্দা বিরাজ। সে পার্ক সার্কাসের একটি সুপরিচিত স্কুলের ছাত্রী। বাড়ির সবাই যখন সরস্বতী পুজো নিয়ে ব্যস্ত, তখন কারও খেয়াল না করেই ছাদে চলে যায় বিরাজ। এর কিছুক্ষণ পরেই নিরাপত্তারক্ষীরা পুলের দিকে ছুটে গিয়ে বিরাজের রক্তাক্ত দেহ মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেন। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

পরিবারের সঙ্গে কথা বলে পুলিশ জানতে পারে

, বিরাজ অনলাইন ক্লাসের জন্য একটি ইলেকট্রনিক গ্যাজেট কিনেছিল। সারাদিন সেই গ্যাজেট নিয়েই ঘুমাচ্ছিল। পুলিশ গ্যাজেটটি উদ্ধার করে এবং

একটি জাপানি ওয়েব সিরিজ সম্পর্কে জানতে পারে। পুলিশ জানায়, ‘প্ল্যাটিনাম এন্ড’ নামের একটি জাপানি সিরিজ দেখে ছাদ থেকে লাফ দেওয়ার

সিদ্ধান্ত নেন বিরাজ।

ফুলবাগানের একজন পুলিশ অফিসারের মতে, সিরিজটিতে দেখানো হয়েছে কিশোর নায়ক ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে এবং একজন ‘ফেরেশতা’ দ্বারা

উদ্ধার করা হয়। তখন ঐ কিশোরী ঐশ্বরিক শক্তিতে অর্জিত হয়। এই কাহিনি দেখে বিরাজ হয়তো ছাদ থেকে লাফ দিয়েছে।

অতীতে দেখা গেছে, ব্লু হোয়েল এবং পুবজির মতো মোবাইল গেম খেলে অনেক শিশু-কিশোর প্রাণ হারিয়েছে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ রঞ্জন ভট্টাচার্য

বলেন, ইদানীং শিশুদের মধ্যে আচরণগত আসক্তি বাড়ছে।

“আচরণগত আসক্তি ঠিক সিগারেট, অ্যালকোহল বা রাসায়নিক আসক্তির মতো,” তিনি বলেছিলেন। মোবাইলে গেম খেলা বা যেকোনো ছবি-সিরিয়াল বা সিরিয়াল দেখার নেশা এই পর্যায়ে পড়ে। মহামারীতে, শিশুরা অনলাইন ক্লাসের সময় আলাদা জানালা খুলে অন্যান্য কাজ করছে। আগে শিশুরা মাঠে খেলত, এখন মোবাইলে গেম খেলে। বাচ্চারাও নিজেদের প্রমাণ করতে চায়, তাদেরও পরিবেশগত চাপ থাকে। তারা ঝুঁকি নেয়। ”

অনলাইন ক্লাসই কাল হলো কিশোরের

“অনলাইন ক্লাস এবং তাদের বাচ্চাদের মোবাইল ফোন ব্যবহার সম্পর্কে অভিভাবকদের আরও সতর্ক হতে হবে,” তিনি বলেছিলেন। মাঝে মাঝে মোবাইল দিয়ে শিশু কি করছে বা করছে না তা দেখা জরুরি। বেবি ডিজিটাল ডিটক্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ জন্য অভিভাবকদের উচিত সন্তানদের বেশি সময় দেওয়া। তাদের সাথে কথা বল. বন্ধুদের সঙ্গে মাঠে খেলা বন্ধ হয়ে গেছে। তাই সময়ে সময়ে শিশুদের বাড়ির বাইরে নিয়ে যাওয়া জরুরি

About Admin

Check Also

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে , স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবিতে অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.